রহস্যময় মৃত্যু উপত্যকার চলমান পাথর.. পড়ুন
রহস্যময় মৃত্যু উপত্যকার চলমান পাথর.. পড়ুন

নিউজ ডেস্ক/ ত্রিপুরা পাবলিক ওপিনিওনঃ আমেরিকার ক্যালিফোর্নিয়ায় অবস্থিত ডেথ ভ্যালি পরিচিত এক নাম পৃথিবীর অন্যতম রহস্যময় এই স্থানটির সৌন্দর্যের তুলনা হয় না কিন্তু এটিই পৃথিবীর সবচেয়ে উত্তপ্ত স্থান ১৯১৩ সালের জুলাই মাসে ১৩৪ ফারেনহাইট বা ৫৬. ডিগ্রী সেলসিয়াস সর্বোচ্চ তাপমাত্রা নথিভুক্ত করা হয়েছিলো তারপর ১৯৭২ সালে এখানকার ভূপৃষ্ঠের তাপমাত্রা রেকর্ড করা হয় যা ছিল প্রায় ২০০ ফারেনহাইট ডেথ ভ্যালির তাপমাত্রা মধ্যপ্রাচ্যের মরুভূমিকেও হার মানিয়ে দেয় কিন্তু তারপর রহস্যে ঘেরা  ডেথ ভ্যালি দেখতে প্রতিবছর প্রায় লক্ষ মানুষ সেখানে ভিড় করে ডেথ  ভ্যালি নামকরণের পিছনে রয়েছে এক ইতিহাস। কথিত আছে ১৮৪৯ সালে একদল স্বর্ণ সন্ধানী দল ডেথ ভ্যালীর মরুভূমি পার হয়ে ক্যালিফোর্নিয়ায় স্বর্ণের সন্ধানে যেতে চেয়েছিল। পথিমধ্যে প্রচন্ড গরমে অসুস্থ হয়ে এক সহযাত্রীর মৃত্যু ঘটে এবং বাকিরা অনেক কষ্টে মৃত্যুর দোরগোড়া হতে ফিরে আসে। তাদের একজন মৃত্যুর দোরগোড়া হতে ফিরে আসার সময় পিছে তাকিয়ে বলে, বিদায়, মৃত্যু উপত্যকা। (ডেথ ভ্যালি)”সেখান থেকেই এর নামকরণ করা হয় মৃত্যু উপত্যকা (ডেথ ভ্যালি) নানা রহস্য বিস্ময়ের দেখা মিলে এই ডেথ ভ্যালিতে। ডেথ ভ্যালিতে চলন্ত পাথর দেখা যায়। যে পাথরগুলোকে দেখলে মনে হয় এরা নিজেরাই নিজেদের স্থান পরিবর্তন করেছে। পাথরগুলিকে অবশ্য চলমান অবস্থায় কেউ কখনো দেখেনি কিন্তু  বালুর উপর রেখে যাওয়া ছাপ থেকে বোঝা যায় এরা স্থান পরিবর্তন করেছে। কয়েকশ পাউন্ড ওজনের এসব ভারি পাথরগুলো কিভাবে এক স্থান থেকে অন্য স্থানে যায় সে রহস্য আজও উন্মোচিত হয়নি ডেথ ভ্যালির রহস্যময় এই পাথর গুলো নিয়ে আছে নানান কল্পনা। কেউ কেউ মনে করেন, এখানে এক বিশেষ ধরনের চৌম্বক ক্ষেত্র তৈরি হয়, যার প্রভাবে পাথরগুলো স্থান পরিবর্তন করে। আবার কারো কারো ধারণা, এগুলো আসলে এলিয়েনদের কারসাজি। ডেথ ভ্যালি তে এলিয়েনদের আগমন ঘটে প্রায়ই। আর তারাই পাথরগুলো স্থানান্তর করে দিয়ে যায়। তবে অধিকাংশ এটা বিশ্বাসই করেন না যে, এই পাথর গুলোর স্থান পরিবর্তন ঘটে  

আরো পড়ুন